আগামী ৭ দিনের মধ্যে দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে ঝড়-বৃষ্টির পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর

আগামী ৭ দিনের মধ্যে দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে (সিলেট বিভাগ) ঝড়-বৃষ্টির পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

দেশে বৈশাখের মাত্র ১৫ দিন পার হয়েছে। আর এতেই তাপপ্রবাহ গত ৭৬ বছরের রেকর্ড ভেঙেছে। আর ইংরেজি মাস এপ্রিলের বাকি তিন দিন। এই তিন দিনেও তাপের পারদ ওঠানামা করবে। তবে মে মাসের শুরুতে সারা দেশেই বৃষ্টির সম্ভাবনা আছে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। আর এই বৃষ্টিতে তাপপ্রবাহ থেকে সাময়িক মুক্তি মিলবে।

গতকাল রবিবার দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে চুয়াডাঙ্গায় ৪২ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এ সময় ঢাকার তাপমাত্রা ছিল ৩৭ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। খুলনা ও রাজশাহী ছাড়া দেশের অধিকাংশ অঞ্চলে তাপপ্রবাহ কিছুটা স্তিমিত হয়েছে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। আগামীকাল সোমবার তাপপ্রবাহ নিয়ে আরেকটি সতর্কতা দেওয়া হতে পারে বলেও জানিয়েছে অধিদপ্তর।

অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ মো. ওমর ফারুক আজকের পত্রিকাকে বলেন, মে মাসের ২ থেকে ৩ তারিখের সময় দেশের বেশির ভাগ জায়গায় বৃষ্টি হতে পারে। আর ৫ ও ৬ মে সারা দেশেই বৃষ্টি হতে পারে। তাপমাত্রা আরও তিন দিন এ রকমই থাকবে। তারপর ক্রমান্বয়ে তাপমাত্রা কমতে থাকবে।

তিনি বলেন, এখনকার তাপপ্রবাহ এপ্রিলের বাকি তিন দিনেও থাকবে। তবে মে মাসের ২ তারিখ থেকে তাপমাত্রা কমতে শুরু করবে। এ সময় উত্তর-পূর্ব ও উত্তর-দক্ষিণাঞ্চলে দিয়ে বৃষ্টি হবে। প্রথম অবস্থায় ঢাকা, ময়মনসিংহ, বরিশাল, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগে বৃষ্টি হতে পারে। এটা ২ বা ৩ মে থেকে শুরু হতে পারে। এরপর বাকি রাজশাহী, রংপুর ও খুলনা বিভাগে ৫ বা ৬ তারিখ থেকে বৃষ্টি শুরু হতে পারে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর বলছে, টানা তাপপ্রবাহ থেকে নিস্তারের একমাত্র উপায় বৃষ্টি। বৃষ্টি হলেই এই তাপপ্রবাহ প্রশমিত হতে পারে। গত বছর এপ্রিল ও মে মিলিয়ে টানা ২৩ দিন তাপপ্রবাহ ছিল। এরপর বৃষ্টির কারণেই সেই তাপপ্রবাহ থেকে নিস্তার মিলেছিল। আর সেটি ছিল দেশের রেকর্ড তাপপ্রবাহ। এবার টানা ২৮ দিন দেশে তাপপ্রবাহ চলমান রয়েছে। যা গত ৭৬ বছরের রেকর্ড ভেঙেছে। এর আগে ১৯৪৮ সালে এমন তাপপ্রবাহ ছিল বেশি দিন ধরে। বৃষ্টি হলেই একমাত্র এই তাপপ্রবাহ কমতে পারে।

Advertisement for Febrics Veiw

  • Save

 

আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ মো. শাহীনুল ইসলাম আজকের পত্রিকাকে বলেন, বাংলাদেশের পশ্চিমে ভারতের যে অঙ্গরাজ্য রয়েছে, বিশেষ করে পশ্চিমবঙ্গ, বিহার ও ওডিশা ও আশপাশের কয়েকটি অঞ্চলে বাংলাদেশের চেয়ে বেশি তাপমাত্রা থাকে। এর সঙ্গে পশ্চিমা বায়ুর প্রভাব যুক্ত হয়। যার ফলে খুলনা ও রাজশাহী অঞ্চলের তাপমাত্রা বেড়ে যায়। তাই দেশের সামগ্রিক তাপমাত্রা কমাতে হলে এই অঞ্চল দিয়ে বৃষ্টিপাত লাগবে।

তবে ওমর ফারুক বলেন, মে মাসের শুরুতে যে বৃষ্টির সম্ভাবনা আছে, সেটি উত্তর-পূর্বাঞ্চল হয়ে আসবে। তাই শুরুতে সিলেট, ময়মনসিংহ, চট্টগ্রাম, ঢাকা ও বরিশাল অংশে সেই বৃষ্টির প্রভাব পড়বে। আর সামগ্রিকভাবে তাপপ্রবাহ কমানোর জন্য দেশের পশ্চিমাঞ্চল দিয়ে যে বৃষ্টিপাত দরকার, সেটি হতে পারে মে মাসের ৬ তারিখের দিকে। তবে এই বৃষ্টি চার থেকে পাঁচ দিন স্থায়ী হতে পারে।

মে মাসও দেশের উষ্ণতম মাস উল্লেখ করে তিনি বলেন, দেশের ইতিহাসে যে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা, তা এই মাসেই রেকর্ড করা হয়েছিল। তাই এই বৃষ্টির পর আবার গরম শুরু হবে।

উল্লেখ্য, দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছিল ১৯৭২ সালের ১৯ মে। সেদিন রাজশাহীতে তাপমাত্রা ছিল ৪৫ দশমিক ১ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

Advertisement for New Era IT Village

  • Save