সেহরিতে যেসব খাবার খাওয়া উচিত ।

সুস্থভাবে সারা মাস রোজা রাখার জন্য ইফতার এবং সেহরিতে খাদ্যতালিকায় সামান্য পরিবর্তন আনতে হবে।
সেহরিতে যেসব খাবার খাওয়া উচিত ।

লাইফস্টাইল ডেস্কঃ

সিয়াম সাধনার মাস রমজান। সুস্থভাবে সারা মাস রোজা রাখার জন্য ইফতার এবং সেহরিতে খাদ্যতালিকায় সামান্য পরিবর্তন আনতে হবে। কোন কোন খাবার খাদ্যতালিকায় রাখলে শরীর সুস্থ থাকবে সেই বিষয়টি নিয়ে সন্দিহান থাকে অনেকেই। কেননা কয়েক বছরের ধারাবাহিকতায় এবারও গরমের মধ্যে রোজা পড়েছে। এ সময় টানা ১৪-১৫ ঘণ্টা না খেয়ে থাকতে হয়।

সুস্বাস্থ্য রক্ষার্থে ইফতার এবং সেহরি উভয়ই সমান গুরুত্বপূর্ণ। অনেক সময়ই ইফতারের উপর আমরা যতটা প্রাধান্য দিয়ে থাকি, সেহরির উপর ততটা প্রাধান্য দিই না। যার ফলে আমরা সারাদিন রোজা রাখার পর অনেক ক্লান্ত হয়ে পরি। আসুন তবে জেনে নেয়া যাক সেহেরিতে আমাদের খাদ্যতালিকায় কি কি রাখা উচিৎ এবং কি রাখা উচিৎ নয়

সেহরিতে খাওয়া জরুরি, এমন কিছু খাবার সম্পর্কে জেনে নিন—

ভাত : ভাতের মধ্যে রয়েছে কমপ্লেক্স কার্বোহাইড্রেট। এটি দেরিতে হজম হয়। ভাত খেলে পেট অনেকক্ষণ ভরা থাকে। এতে ক্ষুধা কম লাগে।

ফল ও সবজি : সেহরির সময় ফল ও সবজি খান। ফল ও সবজির মধ্যে রয়েছে আঁশ, ভিটামিন, ক্যালসিয়াম ও প্রয়োজনীয় ভিটামিন। এগুলো শরীরের জন্য জরুরি।

চর্বি ছাড়া মাংস : চর্বি ছাড়া মাংস সেহরিতে খাওয়া জরুরি। এ ক্ষেত্রে মুরগির মাংস খেতে পারেন। এতে শরীরের প্রয়োজনীয় প্রোটিনের চাহিদা অনেকটা পূরণ হবে।

স্যুপ : সেহরির সময় খাবার খাওয়া শুরু করুন স্যুপ দিয়ে। এমনকি ইফতারেও খেতে পারেন স্যুপ। এটি কেবল দেহকে আর্দ্র রাখবে না, শক্তি ধরে রাখতেও সাহায্য করবে।

পানি : খাবার খাওয়ার আগে এক গ্লাস পানি পান করুন। এটি শরীরকে আর্দ্র রাখবে এবং পানি পিপাসা মেটাতে সাহায্য করবে। এ ছাড়া ইফতার ও সেহরিতে মাঝামাঝি সময়ে পর্যাপ্ত পরিমাণ পানি পান করুন।

খেজুর : সেহরির সময় অন্তত এক থেকে দুটি খেজুর খান। এ ছাড়া রোজা ভাঙার সময় অর্থাৎ ইফতারেও খেজুর খান। খেজুরের মধ্যে রয়েছে প্রাকৃতিক ফ্রুকটোজ। এ ছাড়া এতে রয়েছে অনেক আঁশ। এটি রক্তের গ্লুকোজের মাত্রাকে ঠিক রাখতে সাহায্য করে।

সেহরিতে যা যা খাবেন না

ক্যাফেইন সমৃদ্ধ পানীয় যেমন চা, কফি বাড়িয়ে দেয় আপনার তৃষ্ণা এবং শরীরের তাপমাত্রা। তাই ক্যাফেইনড ড্রিংকস জাতীয় পানীয় গ্রহণ থেকে বিরত থাকুন

সেহরিতে অনেকেই ভারি এবং অধিক পরিমাণ খাবার খেয়ে থাকেন যা একদমই শরীরের জন্য উপযোগী নয়। তাই সেহরিতে ভারী খাবার গ্রহণ করা থেকে বিরত থাকতে হবে। এছাড়া অতিরিক্ত লবণযুক্ত খাবার গ্রহণে দেখা দেয় দেহে পানিশূন্যতা। তাই অতিরিক্ত লবণ যুক্ত খাবার পরিহার করুন।

আরও পড়ুনঃ সুন্দর ও মসৃণ চুলের জন্য তিসির ব্যাবহার।