ইসলামিক ফাউণ্ডেশনের ৪৭ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী আজ

‘ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ’

‘ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ’ এ দেশের জাতীয় ঐতিহ্যের প্রতীক। রাষ্ট্র কর্তৃক পরিচালিত দেশের সর্বোচ্চ ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান ‘ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ’। আজ এ ফাউন্ডেশনের ৪৭তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী।

১৯৭৫ সালের ২২ মার্চ এক অধ্যাদেশ বলে স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের মহান স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এ ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠা করেন। মহান জাতীয় সংসদ থেকে এ্যাক্ট-এর মাধ্যমে অনুমোদিত সরকারি অর্থে পরিচালিত এ ধরনের দ্বীনি প্রতিষ্ঠান মুসলিম বিশ্বে দ্বিতীয়টি নেই।

প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ দেশের ধর্মীয় বিষয়ে প্রধান মুখপত্রের ভূমিকা পালন করে আসছে। পাশাপাশি ধর্মীয় নানাবিদ প্রচার ও প্রসারের কার্যক্রম পরিচালনা করছে। ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাংলা ভাষাভাষী মানুষের ধর্মীয় বিষয়ের জানার আকাংখাকে অগ্রাধিকার দিয়ে গবেষণাধর্মী ইসলামী বই পুস্তক প্রকাশ করে দ্বীনের প্রচার-প্রসারে বিশাল ভূমিকা রেখে আসছে।

বর্তমানে ইসলামিক ফাউন্ডেশন কর্তৃক পরিচালিত কার্যক্রম সমূহের মধ্যে রয়েছে- মসজিদ ভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা, প্রাক-প্রাথমিক ও সহজ কুরআন শিক্ষা কেন্দ্র, দেশের ইমাম ও খতিবদের উন্নত প্রশিক্ষণ ব্যবস্থা এবং ইমাম মুয়াজ্জিন কল্যাণ তহবিলসহ নানা কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে।

সর্বোপরি দেশের সর্বস্তরে আলেম-ওলাম, পীর-মাশায়েখ, ইমাম-খতিব, ইসলামি চিন্তাবিদদের সম্বন্বয়ে একটি অভিন্ন অবস্থান তৈরি করে জাতির সামনে ইসলাম ও মুসলমানদের দায়িত্ব ও কর্তব্য সম্পর্কে জাতিকে সঠিক দিক-নির্দেশনা দেয়ার কাজ আনজাম দিয়ে যাচ্ছে।

প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর এ দিনে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের কার্যক্রম ধাপে ধাপে উন্নতির দিকে এগিয়ে যাবে, দ্বীনি খেদমতের শ্রেষ্ঠ প্রতিষ্ঠান হিসেবে জাতির আশা-আকংখা পূরণ করবে- এই প্রত্যাশায় ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশের প্রতি রইলো শুভ কামনা।

আরো জানুন: নবীর প্রতি দরূদ পাঠকারীর ওপর আল্লাহ রহমত বর্ষণ করেন