ইনিংস ব্যবধানে হারের শংকা বাংলাদেশের

ইনিংস ব্যবধানে হারের শংকা নিয়েই দিনের শুরু থেকে
দ্বিতীয় টেস্ট সেঞ্চুরীশেষে উদযাপনে লিটন দাস

ইনিংস ব্যবধানে হারের শংকা নিয়েই দিনের শুরু থেকে দ্বিতীয় ইনিংস শুরু করেছে বাংলাদেশ। প্রথম ইনিংসে নিউজিল্যান্ড ৫২১ রানে ডিক্লেয়ার করেছিল। জবাবে বাংলাদেশ ১২৬ রানে গুটিয়ে যায়। সেক্ষেত্রে ইনিংস পরাজয় এড়াতেই বাংলাদেশকে দ্বিতীয় ইনিংসে করতে হবে ৩৯৫ রান।

আগের দিনের হতশ্রী ব্যাটিং ভুলে তৃতীয় দিনের সকালের সেশনটা বাংলাদেশ দৃঢ়তার সাথে মোকাবেলা করেই দিনশেষে ৭ উইকেটের বিনিময়ে ২৬৮ রানের পুঁজি গড়েছে।

ইনিংস ব্যবধানে হারের শংকা নিয়েই অসাধারণ ব্যাটিংয়ে, উইকেটের চারিপাশে বাউন্ডারির ফুলঝুরি ছুটিয়ে তিন অঙ্কের ম্যাজিকাল ফিগারের দেখা পেলেন লিটন। এটি লিটন দাসের টেস্ট ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় সেঞ্চুরি। দল যখন খাদের কিনারায় তখন ব্যাটিংয়ে আসেন। রক্ষণাত্মক ক্রিকেটের পরিবর্তে প্রতি আক্রমণে রান তোলেন এই ব্যাটসম্যান। তাতে পেয়ে যান সাদা পোশাকে আরেকটি সেঞ্চুরি। এর আগে হাফ সেঞ্চুরী করার পথে বোল্টের এক ওভারে ১৬ রান তুলেন লিটন দাস।

মুমিনুল ও ইয়াসির অতি দ্রুত বিদায় নিলে চাপে পড়ে বাংলাদেশ। সেখান থেকে দলকে উদ্ধার করেন সোহান ও লিটন। তাদের শতরানের জুটিতে প্রতিরোধ পায় বাংলাদেশ। পেসার ডার্ল মিচেলের বল মিড অফ দিয়ে উড়াতে গিয়ে আউট হন সোহান।

নাঈম শেখের পর মুমিনুল হক ফিরলেন অফস্টাম্পের বাইরের বল তাড়া করতে গিয়ে। অথচ বলটা চাইলেই ছাড়তে পারতেন তিনি। নেইল ওয়াগনারের বলে স্লিপে রস টেইলরের হাতে ক্যাচ দেওয়ার আগে ৩৭ রান করেন বাংলাদেশের অধিনায়ক।

নতুন ব্যাটসম্যান ইয়াসির আলী রাব্বীকেও টিকতে দেননি বাঁহাতি পেসার। ভয়ংকর বাউন্সারে ইয়াসির সাজঘরে ফেরেন। শরীরের উপর তাক করা বাউন্সারে ব্যাট নামাতে পারেননি প্রথম ইনিংসে ফিফটি করা ইয়াসির। বল তার ব্যাটে লেগে টপ এজ হয়। লাথাম সহজ ক্যাচ নিয়ে তাকে সাজঘরের পথ দেখান। এবার ২ রানের বেশি করতে পারলেন না ইয়াসির।

ম্যাচ বাঁচাতে যেভাবে ব্যাটিং করা দরকার ছিল সেভাবে এগিয়ে যাচ্ছিলেন মোহাম্মদ নাঈম শেখ। কিন্তু হঠাৎ তালগোল পাকানো এক শট তার ব্যাটে। তাতে বিদায় চূড়ান্ত হয়ে যায়। সাউদির অফস্টাম্পের বাইরের বলে ড্রাইভ করতে গিয়ে স্লিপে ক্যাচ দেন নাঈম। বামদিকে ঝাপিয়ে বল তালুবন্দি করেন কিউই অধিনায়ক লাথাম। অভিষেক টেস্টের প্রথম ইনিংসে রানের খাতা খুলতে না পারলেও ৯৮ বলে ২৪ রানের কার্যকরী ইনিংস খেলেন নাঈম।

বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা দ্বিতীয় ইনিংসে কী করতে পারে তার উপরই নির্ভর করছে ম্যাচের ফলাফল কেমন হবে। আবহাওয়ার পূর্বাভাসে ম্যাচের শেষ দুই দিনে আছে বৃষ্টির শঙ্কা।

আরও পড়ুন : বাংলাদেশ অল আউট হয়েছে ১২৬ রানে