‘আম্ফান’ শক্তি বৃদ্ধি করে প্রবল ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হয়েছে

১৯৭০ সালের ১২ নভেম্বর সর্বোচ্চ ২২৪ কিলোমিটার বেগে একটি শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় দেশে আঘাত হেনেছিল। তাতে ১০ থেকে ৩৩ ফুট উচ্চতায় জলোচ্ছ্বাসও হয়েছিল। এই ঘূর্ণিঝড়ে প্রায় ৫ লাখ মানুষ ও অসংখ্য গবাদিপশুর মৃত্যু হয়।

খুলনা-বরিশাল উপকূলীয় এলাকায় ২০০৭ সালের ১৫ নভেম্বর ২২৩ কিলোমিটার গতিতে আঘাত হানে ঘূর্ণিঝড় সিডর। এতে প্রায় ৬ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছিল। ভেসে গেছে অসংখ্য বাড়িঘর।

‘আম্ফান’ অতি দ্রুত শক্তি বৃদ্ধি করে ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিচ্ছে। দক্ষিণ-পূর্ব বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন দক্ষিণ-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর এলাকায় অবস্থানরত প্রবল ঘূর্ণিঝড়টি সামান্য উত্তর দিকে অগ্রসর ও ঘণীভূত হয়ে অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হয়েছে। এটি এখন সর্বোচ্চ ঘণ্টায় ১৩০ কিলোমিটারে বেগে প্রবাহিত হচ্ছে।

১৮ মে’র (সোমবার) পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, এ দিন এটি খুব প্রবল ঘূর্ণিঝড়ে (Very Cevere Cyclone) পরিণত হবে। আম্ফানের বাতাসের গতিবেগ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ১৪০ কিলোমিটার, তারপর ১৫০ ও ১৭০ কিলোমিটার পর্যন্ত গিয়ে ঠেকবে।

তারপর দিন ১৯ মে (মঙ্গলবার) এটি আরও ভয়ঙ্কর হয়ে অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড়ে (Extreme Severe Cyclone) রূপ নেবে। এ দিন বাতাসের গতিবেগ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ১৯০ কিলোমিটার, তারপর এটি ২০০ কিলোমিটার পর্যন্ত উঠতে পারে।

২০ মে (বুধবার) পর্যন্ত ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ২০০ কিলোমিটার গতিবেগ থাকতে পারে। বুধবারই আম্ফানের ধংসাত্মক রূপ কিছুটা কমে ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ১৮০ কিলোমিটারে নামতে পারে বাতাসের গতিবেগ।

২১ মে’তে (বৃহস্পতিবার) আম্ফানের সর্বোচ্চ গতি আরও কমে ঘণ্টায় ১১৫ কিলোমিটারে নেমে আসতে পারে। এরপর ঘণ্টায় সর্বোচ্চ গতিবেগ ৬০ কিলোমিটারে নেমে আম্ফান নিঃশেষ হয়ে যেতে পারে।

চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরকে ৪ নম্বর স্থানীয় হুঁশিয়ারি সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। উত্তর বঙ্গোপসাগর ও গভীর সাগরে অবস্থানরত সব মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে উপকূলের কাছাকাছি থেকে সাবধানে চলাচল করতে বলা হয়েছে, যাতে অল্প সময়ের নোটিশে নিরাপদ আশ্রয়ে যেতে পারে। সেইসঙ্গে তাদেরকে গভীর সাগরে বিচরণ না করতে বলা হয়েছে।

রোববার (১৭ মে) রাত ৯টার তথ্যের ভিত্তিতে বিশেষবিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘আম্ফান’ আজ রাত ৯টায় (১৭ মে) চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে ১ থেকে ২৮৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণপশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ১ হাজার ২২০ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণপশ্চিমে, মংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ১ হাজার ২১০ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণপশ্চিমে এবং পায়রা সমুদ্রবন্দর থেকে ১ হাজার ১৯০ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণপশ্চিমে অবস্থান করছিল। এটি আরও ঘণীভূত হয়ে উত্তর-উত্তরপশ্চিম দিকে অগ্রসর হতে পারে।

ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৭৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ১১০ কিলোমিটার, যা দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ১৩০ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের নিকটে সাগর খুবই বিক্ষুব্ধ রয়েছে।